টেস্টে সর্বোচ্চ বল মোকাবেলা করা ১০ বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান

প্রকাশিত: ১০:৫৫ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২১

টেস্টে সর্বোচ্চ বল মোকাবেলা করা ১০ বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান

জুবায়ের আহমেদ:

ক্রিকেট আভিজাত্যের অপর নাম টেস্ট। সাদা পোষাকের টেস্ট ম্যাচ দিয়েই যেমন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সূচনা হয়েছে, তেমনি প্রায় ১৫০ বছর পরেও টেস্ট ক্রিকেট তার সৌন্দর্য্য ধরে রেখেছে। হালের টি২০ ও টি১০ ক্রিকেটের প্রভাবেও এতটুকু মর্যাদা কমেনি টেস্ট ক্রিকেটের বরং সমর্থকদের মাঝে এখনো টেস্ট ক্রিকেট প্রিয় ফরম্যাট হিসেবে আখ্যায়িত হচ্ছে।

 

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের ২১ বছরের পথ চলা। অনিয়মিত কিছু সফলতা ব্যতীত এখনো ধারাবাহিক হতে পারেনি বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০০৫ সালে জয় দিয়ে শুরুর পর উইন্ডিজ, শ্রীলংকা, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মতো দলকে ২০১৭ সালের মধ্যেই হারালেও তৎপর উন্নতির বিপরীতে ২০১৯ সালে ঘরের মাঠেই হারতে হয়েছে নবাগত আফগানিস্তানের সাথে।

 

দলীয় অর্জনের খাতা ভারি না হলেও ব্যক্তিগত অর্জন আছে বেশ কিছু। তার মধ্যে সাকিব আল হাসানের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার হওয়া অন্যতম। আশরাফুলের সর্বকনিষ্ঠ টেস্ট সেঞ্চুরীয়ানের রেকর্ড ধরে রাখা, সোহাগ গাজীর একই ম্যাচে শতক ও হ্যাট্রিকের বিরল রেকর্ড তৈরী করা, আবুল হাসান রাজুর ১০ নাম্বারে নেমে রেকর্ড শতক করা সহ মুশফিক, তামিম, মোমিনুলদের দূর্দান্ত ব্যাটিংয়েই টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের আশা টিকে থাকে।

 

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান এখন মুশফিকুর রহিম। ২০০৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হওয়া মুশফিক শুরু থেকে নড়বড়ে থাকলেও ২০১০ সাল পরবর্তী সময় থেকে নিজের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে দেশসেরা ব্যাটসম্যানে পরিণত হয়েছেন। দেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি ডাবল সেঞ্চুরীর মালিকও মুশফিকুর রহিম। দেশের হয়ে সর্বোচ্চ টেস্ট রানও রহিমের। সেই সাথে টেস্টের ধৈর্য্যর পরিচয় দিয়ে সর্বোচ্চ বল মোকাবেলার রেকর্ডটটিও মুশফিকের।

 

টেস্টে সর্বোচ্চ বল মোকাবেলা করা ১০ বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান-

১. দেশের হয়ে ৭০ টেস্টে  সর্বোচ্চ ৪৪১৩ রান করার বিপরীতে সর্বোচ্চ ৯২৪০ বল মোকাবেলা করেন মুশফিকুর রহিম।

২. দেশের হয়ে ৬০ টেস্টে  ৪৪০৫ রান করার বিপরীতে ৭৭৯৮ বল মোকাবেলা করেন তামিম ইকবার।

৩. দেশের হয়ে ৫৬ টেস্টে ৩৮৬২ রান করার বিপরীতে ৬২২৪ বল মোকাবেলা করেন সাকিব আল হাসান।

৪. দেশের হয়ে ৬১ টেস্টে ২৭৩৭ রান করার বিপরীতে ৫৯৪০ বল মোকাবেলা করেন মোহাম্মদ আশরাফুল।

৫. দেশের হয়ে ৪৯ টেস্টে  ২৭৬৪ রান করার বিপরীতে ৫১৭৮ বল মোকাবেলা করেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

৬. দেশের হয়ে ৪০ টেস্টে  ২৮৬০ রান করার বিপরীতে ৫১০৪ বল মোকাবেলা করেন মোমিনুল হক।

৭. দেশের হয়ে ৫০ টেস্টে ৩০২৬ রান করার বিপরীতে ৫০২০ বল মোকাবেলা করেন হাবিবুল বাশার।

৮. দেশের হয়ে ৪০ টেস্টে  ১৭২০ রান করার বিপরীতে ৪৫০৯ বল মোকাবেলা করেন জাবেদ ওমর।

৯. দেশের হয়ে ৪৪ টেস্টে  ১৪০৯ রান করার বিপরীতে ৪১৩৬ বল মোকাবেলা করেন খালেদ মাসুদ পাইলট।

১০. দেশের হয়ে ৩৯ টেস্টে  ১৭৯৭ রান করার বিপরীতে ৩৭৪২ বল মোকাবেলা করেন ইমরুল কায়েস।

 

৫ হাজার বা তারও বেশি বল মোকাবেলা করেন মাত্র ৭ ব্যাটসম্যান। ৪ হাজার বা তারও বেশি বল মোকাবেলা করেন ৯ ব্যাটসম্যান। দেশের হয়ে ৩ হাজার বা তারও বেশি বল মোকাবেলা করেন ১১ ব্যাটসম্যান।

 

উল্লেখিত ১০ ব্যাটসম্যানের মধ্যে রানের তুলনায় সবচেয়ে বেশি বল মোকাবেলা করেন অর্থাৎ সর্বনিম্ন ৩৪.০৬ স্ট্রাইকরেটে ব্যাট করেন খালেদ মাসুদ পাইলট। ৫ হাজারেরও বেশি বল মোকাবেলা করা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে রানের তুলনায় সবচেয়ে বেশি বল মোকাবেলা করেন অর্থাৎ সর্বনিম্ন ৪৬.০৭ স্ট্রােইকরেটে ব্যাট করেন মোহাম্মদ আশরাফুল।

 

সবমিলিয়ে দেশের হয়ে সর্বোচ্চ ম্যাচ, সর্বোচ্চ রান, সর্বোচ্চ বল মোকাবেলার মতো ধৈর্য্যশীলতার পরিচয়ও দিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। তিনি ৯২৪০ বল মোকাবেলা করোর বিপরীতে মাত্র ৪৭.৭৫ স্ট্রাইকরেটে ব্যাট করেছেন।

 

আসন্ন উইন্ডিজ সিরিজে দুই ম্যাচ জয়ের স্বপ্ন নিয়েই খেলতে নামবে টাইগাররা। এখানেও সবচেয়ে বড় ভরসার নাম হয়ে থাকছেন মুশফিকুর রহিম। সেই সাথে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মোমিনুল হক, মেহেদী মিরাজ, তাইজুলদের হাত ধরে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের লড়াইয়ে ২ ম্যাচ জয়ে পয়েন্ট টেবিলে উন্নতি করবেন বাংলাদেশ, সেই স্বপ্ন এখন টাইগার সমর্থকদের মনে।

 

Like Us On Facebook

Facebook Pagelike Widget
error: Content is protected !!