হোম সিরিজে বাংলাদেশের সম্ভাব্য দল

প্রকাশিত: ১২:৩৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩১, ২০২০

হোম সিরিজে বাংলাদেশের সম্ভাব্য দল

জুবায়ের আহমেদ:

বাংলাদেশ বনাম উইন্ডিজের মধ্যকার দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজ এবং তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের জন্য তারুণ্য নির্ভর দল গঠন করেছে উইন্ডিজ। দুই দল মিলিয়ে নেই অভিজ্ঞ ও নিয়মিত ১০ ক্রিকেটার। ঘোষিত দলে তরুণদের পাশাপাশি সুযোগ দেওয়া হয়েছে জাতীয় দলে অনিয়মিত খেলা কয়েকজন ক্রিকেটারকেও।

 

উইন্ডিজ যখন তারুণ্য নির্ভর দল গঠন করেছে অভিজ্ঞ ও নিয়মিত মুখদের বাহিরে রেখে, সেখানে স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন এসে যায় স্বাগতিক বাংলাদেশ দলও কি উইন্ডিজদের মতো তারুণ্য নির্ভর দল ঘোষণা করবে। উত্তরটা তোলা থাকলো সময়ের কাছেই। তবে এ প্রসঙ্গে কিছু কথা এসেই যায়।

 

উইন্ডিজ শক্তিশালী দল গঠন করবে ধরে নিয়েই এতোদিন ধরে বাংলাদেশ দলে কারা সুযোগ পাবে, তরুণদের মধ্যে কারা জায়গা পাওয়ার দাবীদার সে আলোচনা হচ্ছিল। তারপর উইন্ডিজ তারুণ্য নির্ভর দল গঠনের পর স্বাভাবিক ভাবেই বাংলাদেশ দল গঠনের পরিকল্পনায় কিছুটা হলেও পরিবর্তন এসেছে।

 

২০১৮ সালে বাংলাদেশ সফরে এসে ওয়ানডে সিরিজ হেরেছিল উইন্ডিজ।  টেস্ট সিরিজ হয়েছিল ড্র। আসন্ন সিরিজেও একই ফলাফল প্রত্যাশা ছিলো টাইগার সমর্থকদের। সেখানে উইন্ডিজ তারুণ্য নির্ভর দল গঠন করায় দুই সিরিজ মিলিয়ে ৫ ম্যাচ জয় করা যেনো বাংলাদেশের জন্য সহজ ও আবশ্যকীয় কাজ হয়ে গেছে। উইন্ডিজকে ৫ ম্যাচে হারাতেই হবে বলে কয়ে, তাই শক্তিশালী দল গঠন করা প্রয়োজন, নাকি স্বাগতিক হিসেবে তরুণদের সুযোগ দিয়ে তাদের পরখ করা দরকার।

 

মাশরাফি-সাকিব-তামিমদের বিকল্প তৈরীর চেস্টাটা বহুদিনের। এই চেষ্টার অংশ হিসেবে মাঝে মধ্যে তরুণদের সুযোগ দিলেও নিয়মিত সুযোগ দিতে না পারা কিংবা সুযোগ পাওয়ারা নিজেদের মেলে ধরতে না পারার মাঝেও কিছু ক্রিকেটার আলাদা নজর কেড়েছে, যাদের সামর্থ্য আছে দেশের হয়ে পারফর্ম করার।

 

স্বাগতিক দেশ এমনিতেই কিছুটা এগিয়ে থাকে। পরীক্ষা নিরীক্ষা করার জন্য ভালো জায়গাও ঘরের মাঠের খেলায়। পাশাপাশি প্রতিপক্ষ যখন তারকা ক্রিকেটারদের ছাড়া তারুণ্য নির্ভর দল গঠন করে, তখন স্বাগতিক দলের তরুণদেরও বাজিয়ে দেখার প্রসঙ্গ এসে যায়। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু কাপে অনেক তরুণ ক্রিকেটার ভালো করায় তাদের সুযোগ দেয়ার দাবী আছে। এই দাবী পূরণের মোক্ষম সুযোগ উইন্ডিজের বিপক্ষে আসন্ন হোম সিরিজ।

 

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপে এখনো জয় কিংবা ড্র করতে পারেনি বাংলাদেশ। ৩ ম্যাচের তিনটিতেই হেরেছে। তাই উইন্ডিজের বিপক্ষে হোম সিরিজের দুই টেস্ট জয় লাভের মাধ্যমে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপে পয়েন্ট অর্জনের জন্য টেস্টে শক্তিশালী দল গঠনের কোন বিকল্প নেই। তবে ওয়ানডে সিরিজে একাধিক তরুণ ক্রিকেটারদের দলভুক্ত করা এবং একাদশে সুযোগ দেওয়া জরুরী। তরুণদের পরখের জন্য খর্ব শক্তির প্রতিপক্ষ দলের সাথে খেলাই উত্তম জায়গা।

 

শেখ মেহেদী হাসানের এখনো ওয়ানডে অভিষেক হয়নি। আফিফের অভিষেক হলেও মাত্র শুরু করেছেন। সেই সাথে পুরনো ক্রিকেটারদের মধ্যে তাসকিন ফেরার লড়াইয়ে সফলতা দেখিয়েছেন। ওয়ানডে সিরিজে মেহেদী, আফিফকে দলভুক্ত করা দারুণ সিদ্ধান্ত হবে। বিশ্বকাপজয়ী যুবাদের মধ্যে এখনি কাউকে সুযোগ দেয়ার পরিকল্পনা না থাকলেও উইন্ডিজের প্রায় বি টিম গঠনের পর পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনা জরুরী। বোলারদের মধ্যে শরিফুল ইসলাম কিংবা শহিদুল ইসলামকে সুযোগ দেয়া যায়। তবে আসন্ন সিরিজের ওয়ানডে দলে মাশরাফির দলভুক্তির বিষয়ে আলোচনা হওয়ায় শেষ পর্যন্ত মাশরাফিরও জায়গা হতে পারে ওয়ানডে দলে।

 

বাংলাদেশের সম্ভাব্য টেস্ট দল-

তামিম ইকবাল, সাদমান/সাইফ হাসান, নাজমুল হোসাইন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, লিটন দাশ, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহি, নাইম হাসান, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান, আল আমিন হোসেন ও ইবাদাত হোসাইন।

 

টেস্ট দলে সৌম্যকে না নিয়ে সাদমান কিংবা সাইফকে সুযোগ দিয়ে গড়ে তোলা হবে দারুণ সিদ্ধান্ত। সাইফুদ্দিনের টেস্ট অভিষেক হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও ইনজুরীর কারনে আসন্ন সিরিজের টেস্ট দলে সাইফুদ্দিনকে দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা নেই।

 

বাংলাদেশের সম্ভাব্য ওয়ানডে দল-

তামিম ইকবাল,  লিটন দাশ, নাজমুল হোসাইন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সৌম্য সরকার, শেখ মেহেদী হাসান, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান, সাইফুদ্দিন/মাশরাফি বিন মোর্তুজা, আল আমিন হোসেন ও রুবেল হোসেন।

 

ইনজুরীর কারনে সাইফুদ্দিনের খেলার সম্ভাবনা পুরোপুরি নেই। আর সাইফুদ্দিন থাকলে ১৬ সদস্যের দল হতে পারে। না থাকলেও পারভেজ হোসাইন ইমন কিংবা অন্য কোন তরুণ ক্রিকেটারকে দলের সাথে রাখা যেতে পারে। মোহাম্মদ নাইম শেখও ওয়ানডে দলে থাকার দাবীদার, তবে নাজমুল শান্তর বদলে নাইমকে না নেয়ার সম্ভাবনাই বেশি। কেননা দলে তামিম, লিটন, সৌম্য ওপেনার হিসেবে থাকায় নাইম কিংবা শান্ত দুজনের যেই দেলে থাকুক, একাদশে সুযোগের সম্ভাবনা থাকবে খুব কম।

 

দলে যারাই সুযোগ পাক না কেনো, উইন্ডিজের খর্ব শক্তির দল গঠনের পর বাংলাদেশ দলকেও ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে দল গঠন করার কোন বিকল্প নেই।

 

 

Like Us On Facebook

Facebook Pagelike Widget
error: Content is protected !!