শহিদুলের বোলিং নৈপুণ্য

প্রকাশিত: ৫:৫১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০২০

শহিদুলের বোলিং নৈপুণ্য

জুবায়ের আহমেদ:

গতকাল বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের ২য় ম্যাচে ৪ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছে জেমকন খুলনা। বরিশালকে হারিয়ে দুর্দান্ত জয়ের নায়ক আরিফুল হলেও বল হাতে ৪ উইকেট ও ব্যাট হাতে এক ছয়ে ৮ রান করা শহিদুল ইসলাম অন্যতম নায়ক।

 

 

মিরপুরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শহিদুলের বোলিং তোপে পরে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৫২ রান করেছিল তামিম ইকবাল বাহিনী। জবাবে তাসকিনদের বোলিং তোপে পরে মাত্র ৩৬ রানের মধ্যেই চার তারকা ক্রিকেটার বিজয়, কায়েস, সাকিব, রিয়াদ ফিরলে জয়ের সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে যায় খুলনার।

 

অভিজ্ঞ জহুরুল ইসলাম ও আরিফুল জুটি বেধে দলকে এগিয়ে নিলেও ২৫ বলে ৩১ রান করে ফেরেন। জহুরুল। ধীর গতিতে খেলে এগুতে থাকেন আরিফুল। তরুণ শামিম হোসাইন ১৮ বলে ২৬ রান করে ফেরার পরও আরিফুল খোলসবন্ধী থাকায় জয়ের জন্য ২০তম ওভারে ২২ রানের প্রয়োজন হয়। ব্যাট হাতে তখন স্ট্রাইকে ২৯ বলে মাত্র ২৪ রান করে দুয়োধ্বনি শুনা আরিফুল। বল হাতে মিরাজ। স্পিনার পেয়েই যেনো ঝড় তোলতে মরিয়া আরিফুল। মিরাজের নির্বিষ বোলিংয়ে ঝড় তোলে টানা ৩ ছয় সহ ৫ বলে ৪টি ছয় হাঁকিয়ে দলকে ৪ উইকেটের অবিশ্বাস্য জয়ে এনে দিয়ে ভিলেন থেকে হিরোতে পরিণত হন আরিফুল। জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছেও পরাজয়ের হতাশায় পুড়ে বরিশাল।

 

২ ওভারে ২৯ রানের সমীকরণে ১৯তম ওভারের ৬ষ্ঠ বলে তাসকিনকে ছয় হাঁকান শহিদুল। আর এতেই ২০তম ওভারে টার্গেট ২২ এ আসে। মিরাজকে ৪ ছয় হাঁকিয়ে দলকে জেতান আরিফুল।

 

ঘরোয়া ক্রিকেটের সবকটি আসরেই পারফর্ম করছেন শহিদুল ইসলাম। তবে বিপিএল সহ টি২০ ফরম্যাটে কতটা ভয়ংকর হতে পারেন ২৫ বছর বয়সী শহিদুল, তার প্রমাণ দিয়েছেন গতকালও।

Like Us On Facebook

Facebook Pagelike Widget
error: Content is protected !!