আশরাফুলের ঝড়ো ফিফটি, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই

প্রকাশিত: ৫:৪২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০২০

আশরাফুলের ঝড়ো ফিফটি, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই

জুবায়ের আহমেদ:নিউজিল্যান্ডের সোথে ৩৫টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে বাংলাদেশের জয় ১০টি। ২০০৮ সালেই প্রথম জয় পায় টাইগাররা। তারপর ২০১০ সালে ঘরের মাঠে কিউইদের হোয়াইটওয়াশ করার পর এ পর্যন্ত ধারাবাহিক সফলতা আসলেও পূর্বে পরিস্থিতি ছিলো ভিন্ন। ধারাবাহিক পরাজয় নিয়তির পাশাপাশি লড়াই করাও কঠিন হতো কিউইদের সাথে।

 

১৯৯০ সালে প্রথমবারের মতো নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। প্রথম দেখায় বাংলাদেশ ১৭৭ রানের সংগ্রহ পেলেও পরবর্তীতে ৭৭ ও ৮৬ রানেও।

 

২০০৭ সালের বিশ্বকাপ শেষে বাংলাদেশ দলের নিউজিল্যান্ড সফরের আগ পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের সাথে দেশে বিদেশে কখনোই ২০০ রান করতে না পারা বাংলাদেশ দল ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে অসাধারণ পারফর্ম করে উজ্জীবিত থেকেই আশরাফুলের অধিনায়কত্বে নিউজিল্যান্ড সফর করতে যায়।

 

নিউজিল্যান্ডের সাথে প্রথম ইনিংস কিংবা ২য় ইনিংস ২০০ করতে না পারা এবং লড়াইহীন পরাজয়ই যেখানে নিয়মি ছিলো, সেখানে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের ১ম ম্যাচেই অকল্যান্ডে নিউজিল্যান্ডের সাথে প্রথমবারের মতো দুইশ ছাড়ানো সংগ্রহ পায় টাইগাররা। বাংলাদেশ ২০১ রানে অলআউট হলেও ম্যাচে মাত্র ৩৮ বলে ফিফটি ও ৫৭ বলে ১ ছয় ও ১০ চারে ৭০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন। তামিম ইকবাল ৬৬ বলে ৫০ রান করেন।

 

বাংলাদেশের গড়া ২০১ রানের জবাবে নিউজিল্যান্ড ৪ উইকেট হারিয়ে ২০৩ রান সংঘ্রহ গড়ে ৬ উইকেটের জয় তুলে নিলেও নিউজিল্যান্ডের মতো টাফ কন্ডিশনেই প্রথমবারের মতো তাদের সাথে ২০০ (২০১) রান করা এবং আশরাফুলের ৫৭ বলে ৭০ রানের ঝড়ো ইনিংস ছিলো দূর্দান্ত ক্রিকেটের অংশ।

 

 

সে সিরিজে বাংলাদেশ দল ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল। তবে লড়াই করার মানসিকতা বজায় রেখে ২০০৮ সালেই ঘরের মাঠে সিরিজের প্রথম ম্যাচে জুনায়েদ সিদ্দিকীর ৮৫ ও অধিনায়ক আশরাফুলের ৬০ রানের সুবাদে ৭ উইকেটের বড় জয় এসেছিল প্রথমবারের মতো। সেই থেকে জয়ের শুরু হওয়ার পর ঘরে বাহিরে সফলতা পাওয়া অব্যাহত আছে এখনোও।

Like Us On Facebook

Facebook Pagelike Widget
error: Content is protected !!